COVID Vaccine

কোভিড ইনজেকশন গুলোতে কি আছে?

কোভিড ইনজেকশন গুলো কোন সাধারণ ভ্যাকসিন নয়, বরং এই গুলো এমআরএনএ জিন থেরাপি, যা ধীরে ধীরে মানুষের ডিএনএ পরিবর্তন করবে। মানুষ আর মানুষ থাকবে না, বরং অন্য কিছু হয়ে যাবে। সাধারণ ভ্যাকসিন তৈরি করতে সাধারণত ৫ থেকে ১০ বছর সময় লাগে। কিন্তু এই নতুন এমআরএনএ ইনজেকশন গুলোকে অতি দ্রুত তৈরি করা হয়েছে। এই ইনজেকশন গুলো পরীক্ষামূলক! যারা ইনজেকশন গুলো নিয়েছে তারাই ছিল ভ্যাকসিন ট্রাইয়ালের গিনি পিগ বা টেস্ট সাবজেক্ট! এই ভ্যাকসিন গুলোতে কি আছে কেউ জানে না। কিন্তু অনেক ডাক্তার, বিজ্ঞানী এবং গবেষকেরা ইনজেকশনগুলোর ভিতরে কি আছে তা বের করছেন। 

 

ডঃ রবার্ট ইয়াং

ডঃ রবার্ট ইয়াং

ডঃ রবার্ট ইয়াং-এর গবেষণাপত্রে উপসংহারে বলা হয়েছে, এই কোভিড ইনজেকশন গুলি "ভ্যাকসিন" নয় কিন্তু ন্যানোটেকনোলজিক্যাল ওষুধ যা জেনেটিক থেরাপি হিসাবে কাজ করে।  এই সমস্ত তথাকথিত "ভ্যাকসিন" পেটেন্ট করা হয়েছে, এবং তাই তাদের প্রকৃত বিষয়বস্তু ক্রেতাদের কাছেও গোপন রাখা হয়েছে। সুতরাং, ভোক্তাদের ইনজেকশনের মাধ্যমে তারা তাদের শরীরে কী পাচ্ছেন সে সম্পর্কে কোন তথ্য নেই।

ডাঃ ইয়াং এর মতে, কোভিড ইনজেকশনের কারণে বিশ্বব্যাপী আনুমানিক ৫০০ মিলিয়ন মানুষ ইতিমধ্যেই আহত হয়েছে, সম্ভাব্য ৩৫ মিলিয়ন মৃত্যুবরন করেছে। প্রাকৃতিক অনাক্রম্যতা (Natural Immunity) আছে এমন লোকেদের তুলনায় যারা দুইটি ইনজেকশন নিয়েছে তাদের "ডেল্টা ভেরিয়েন্ট" দ্বারা আক্রান্ত হয়ে, হাসপাতালে ভর্তি বা মারা যাওয়ার সম্ভাবনা ১৩ গুণ বেশি। আগামী মাসে এটি বাড়তে পারে। আসলে কি এই কোভিড "ভেরিয়েন্ট" এবং ভবিষ্যতের "তরঙ্গ" সৃষ্টি করছে?

"ভ্যাকসিনে" স্পাইক প্রোটিনের জেনেটিক কোড কম্পিউটার দ্বারা তৈরি, এটি "মানবসৃষ্ট" এবং সহজেই পরিবর্তন করা যায়। এবং, শরীরের টিস্যুতে গ্রাফিন অক্সাইড - মস্তিষ্ক, সংযোগকারী টিস্যু, সম্ভাব্য পেশীতে 5G-রেঞ্জের মধ্যে স্পন্দনশীল ফ্রিকোয়েন্সিগুলির সাথে যোগাযোগ করবে। ডঃ ইয়াং বলেছেন, অক্টোবরে ভবিষ্যদ্বাণী করা পরবর্তী "তরঙ্গ" এর কারণ হবে।

আপনার শরীরে বিষ নেওয়া বন্ধ করুন, ডঃ ইয়াং বলেছেন, এই [কোভিড] ইনজেকশন গুলি বিপজ্জনক কারণ ন্যানো কণাগুলি রক্ত-মস্তিষ্কের বাধার মধ্য দিয়ে যেতে পারে, তারা বায়ু-রক্ত বাধার মধ্য দিয়ে যেতে পারে। এই কারণেই এই ইনজেকশনগুলি এত বিপজ্জনক। এর কারণ এই কণাগুলি যেতে পারে: রক্ত-মস্তিষ্কের বাধা (যা সুরক্ষিত), বায়ু-রক্ত বাধা, এবং অণ্ডকোষ বা ডিম্বাশয়-রক্ত বাধা দিয়ে। এই ন্যানো কণাগুলি ঠিক ভিতরে যায়।

শরীরকে সুস্থ করার জন্য শরীরকে বিষাক্ত করার কোন মানে নেই - এটি একটি ব্যর্থ বর্ণনা।

 

কোভিড ভ্যাকসিনে যে উপাদানগুলো পাওয়া গিয়েছে

কোভিড ভ্যাকসিনে যে উপাদানগুলো পাওয়া গিয়েছে
  1. অ্যালুমিনিয়াম
  2. বিসমুথ 
  3. ক্যাডমিয়াম
  4. ক্রোমিয়াম
  5. তামা 
  6. আয়রন 
  7. সীসা 
  8. ম্যাগনেসিয়াম 
  9. ম্যাঙ্গানিজ 
  10. নিকেল 
  11. সেলেনিয়াম 
  12. সিলিকন 
  13. সালফার 
  14. টিন 
  15. টাইটানিয়াম 
  16. ভ্যানডিয়াম 
  17. গ্রাফিন অক্সাইড (C140H42O20)

 

ইনজেকশনগুলোতে গ্রাফিন অক্সাইড আছে

গ্রাফিন অক্সাইড সম্পর্কে আরো জানতে এখানে ক্লিক করুন। 

 

ডঃ মাইকেল ইয়াডন

ডঃ মাইকেল ইয়াডন

উনি ডঃ মাইকেল ইয়াডন, ফাইজার ফার্মাসিউটিক্যালসের প্রাক্তন ভাইস প্রেসিডেন্ট। তিনি টিকাগুলির বিষয়ে, কোভিড-১৯ সম্পর্কে, নতুন "ভেরিয়েন্ট" সম্পর্কে সত্য নিয়ে এগিয়ে এসেছেন। 

ডঃ মাইকেল ইয়াডন বলেছেনঃ

  1. কোন নতুন ভেরিএন্ট নেই. মূল ভেরিএন্ট টি ইনফ্লুয়েঞ্জার চেয়ে কম মারাত্মক ছিল।
  2. ভ্যাকসিনেশ গুলোতে ভিতরে আসলে এক ধরণের চিপ বা QR কোড আছে। 
  3. ইনজেকশনের স্থানে চুম্বক লেগে থাকে! এটি আপনি নিজেই চেষ্টা করুন। ইনজেকশনের স্থানে দুই ইঞ্চি ব্যাসের মধ্যে একটি চুম্বক আটকে দিন। আপনি কোন টিকা পেয়েছেন তার উপর নির্ভর করে, হয় একটি চুম্বক লেগে থাকবে বা একটি ছোট ধাতব বস্তু যেমন একটি চাবি লেগে থাকবে। বস্তুটি ইমপ্লান্টের সাথে সংযুক্ত হওয়ার সাথে সাথে আপনি টান অনুভব করতে পারবেন।
  4. যে কেউ টিকা দেওয়ার আগে সুস্থ ছিল তার আয়ু ইনজেকশনের পর হবে ২-৭ বছর
  5. গর্ভবতীদের ভ্যাকসিন নেওয়া উচিত নয়। 
  6. যারা ভবিষ্যৎ এ সন্তান নিতে চান তাদের ভ্যাকসিন নেওয়া উচিত নয়। 
  7. কেন তারা বিশ্ব জনসংখ্যার সাথে এটি করছে? কারণ তারা একত্বান্ত্রিক নিয়মে বিশ্বকে নিয়ন্ত্রণ করতে চায়। তারা মানুষের চলাফেরা ট্র্যাকিং, স্বাস্থ্য অবস্থা ট্র্যাকিং অর্থ ট্র্যাকিং করতে চায় ও পৃথিবীতে কম মানুষ চায়। 
  8. লকডাউন কাজ করে না, লকডাউন করে কোন লাভ নেই। 
  9. পিসিআর টেস্ট কাজ করে না। 
  10. মুখোশ (মাস্ক) কাজ করে না। 
  11. মিডিয়ার মাধ্যমে মানুষর মনে কোভিড মহামারীর ভয় ঢুকানো হয়েছে। 
  12. ভ্যাকসিন নেওয়ার পর মানুষ মরে। 
  13. তারা শেষপর্যন্ত মানুষকে গণহত্যা করবে। 

 

ডঃ মাইকেল ইয়াডনের কভিড, ভেরিএন্ট, ও ইনজেকশন নিয়ে কিছু কথা। 

 

কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনগুলো গণ হত্যাকারী! এইগুলো মানুষকে গণহত্যা করবে।  

 

কেরেন কিংস্টন

কেরেন কিংস্টন, একজন প্রাক্তন ফাইজার কর্মচারী এবং ফার্মাসিউটিক্যাল এবং মেডিকেল ডিভাইস শিল্পের বর্তমান বিশ্লেষক, তিনি দলিল নিয়ে এসেছেন, যা প্রমাণ করে বায়োটেকের কোভিড-১৯ সিরামের মূল উপাদান গ্রাফিন অক্সাইড ন্যানোপার্টিকেলস্‌ এর অর্থ হল একটি অননুমোদিত বিষ "টিকা" হিসাবে বাজারজাত করা হচ্ছে এবং শিশুদের শিরায় ইনজেকশন দেওয়া হচ্ছে।

প্রমাণ যে ভ্যাকসিনগুলোতে গ্রাফিন অক্সাইড আছে। 

 

ডঃ জেন রুবি

ডঃ রুবি রিপোর্ট, ভ্যাকসিনের শিশিগুলিতে অন্যান্য বিপজ্জনক জিনিসগুলির মধ্যে গ্রাফিন অক্সাইড, পরজীবী, স্টেইনলেস স্টিল আছে। 

 

সম্পূর্ণ টিকাপ্রাপ্ত মানুষরা মারা যাচ্ছে। ডেল্টা ভেরিএন্ট না, বরং টিকা নিয়ে মানুষ মরছে। 

 

ম্যাস্কে ও গ্রাফিন অক্সাইড আছে!

প্রমাণ যে ম্যাস্কে গ্রাফিন অক্সাইড আছে

 

 

অপরীক্ষিত কোভিড ইনজেকশন নেওয়ার পর মানুষের কি হয়েছে তা জানতে, ইনজেকশনের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া রিপোর্ট টি পড়ুন। এই বিষাক্ত অপরীক্ষিত কোভিড ইনজেকশন থেকে দূরে থাকুন, নিজের জীবন রক্ষা করুন। 

 

শেয়ার করুণ

এই পোস্টটি অন্যদের সাথে শেয়ার করুন। তাদেরকেও সত্য জানতে সাহায্য করুন! তাদেরকে মিথ্যার অন্ধকার থেকে, সত্যের আলোতে আসতে সাহায্য করুন! 

 


তথ্যসূত্রঃ

Dr. Michael Yeadon

COVID-19 Vaccine Ingredients

American Scientists Confirm Toxic Graphene Oxide, and More, in Covid Injections

CONFIRMED! Graphene Oxide Main Ingredient In Covid Shots

Scanning & Transmission Electron Microscopy Reveals Graphene Oxide in CoV-19 Vaccines